কমলনগর মতিরহাট রুটে রুবেলের চাঁদার প্রতিবাদ করছে সিএনজি চালকরা

0
156

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি : লক্ষ্মীপুরে জেলা ব্যাপী সিএনজি’র চাঁদা আদায়ের নিষেধাজ্ঞা থাকলেও তা মানছেনা কমলনগরের তোরাবগঞ্জ-মতিরহাটের সিএনজি চাঁদাবাজি সিন্ডিকেটের প্রধান রুবেল।

থ্রি ষ্টার এ সিন্ডিকেটে আছে রুবেল-রুহুল আমিন-খোরশেদ আলম। প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে তারা প্রকাশ্যে চাঁদা আদায় করে নিচ্ছেন সিএনজি চালকদের কাছ থেকে। সিএনজি চালকরা এ সিন্ডিকেটের ভয়ে কিছু বলতে সাহস পাচ্ছেনা। চালকদের এক রকম জিম্মি করে এ চাঁদা আদায় করছে তারা।

তোরাবগঞ্জ বাজারে কয়েকজন চালক জড়ো হয়ে প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, রুবেলের লোকজন, তোরাবগঞ্জ থেকে মতিরহাটে যেতে নেয় বিশ টাকা, মতিরহাট থেকে তোরাবগঞ্জে আসতে নেয় বিশ টাকা।
এছাড়া এ রুটে নতুন কোন সিএনজি ভর্তি হলে এ সিন্ডিকেটকে ৫ থেকে ৬হাজার চাঁদা দিতে হচ্ছে। চালকরা জানান, তারা আমাদের কাছ থেকে চাঁদা নিয়ে আমাদেরকে সতর্ক করে দেয় কাউকে যেন না বলি। বললে পরিণতি খারাপ হবে।

শুক্রবার (২৮জুন) বিকেলে সরেজমিনে অনুসন্ধান কালে সিএনজি চালকরা এসব কথা বলে।

ওই সিন্ডিকেটের সদস্যরা হলেন, জেলার কমলনগর উপজেলার চরলরেঞ্চ ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের শফিক উল্যার পুত্র রুবেল, চরলরেঞ্চ ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের খোরশেদ আলম ও তোরাবগঞ্জ ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের মুন্সির পুত্র রুহুল আমিন।

চাঁদা আদায়ের বিষয়ে জানার জন্য ওই সিন্ডিকেটের কোন সদস্য কে খুঁজে পাওয়া না গেলেও তাদের নিয়ন্ত্রণে দায়িত্বে থাকা বেঁটে চৌধরী, সাইফুুল ও বেলাল চাঁদা আদায়ের কথা স্বীকার করে বলেন, এ টাকা থেকে আমাদের বেতন, অফিস ভাড়া সহ বিভিন্ন স্থানে মাসোয়ারা দিতে হয় বলে জানান।

এ বিষয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য আবদুল মতিনের বক্তব্য জানতে চাইলে তিনি বলেন, চাঁদা নেওয়ার বিষয়ে প্রতিদিনিই আমার কাছে বহু সিএনজি চালক এসে অভিযোগ করছে। তাছাড়া জেলা সিএনজি শ্রমিক ইউনিয়নের পক্ষ থেকে সিএনজি থেকে চাঁদা না নেয়ার জন্য সতর্ক করেছে। তারা কিভাবে চাঁদা তুলছেন এ প্রশ্ন রেখে তিনি প্রশাসনের জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।

কমলনগর থানা ওসি, ইকবাল হোসেন বলেন, চাঁদা নেওয়ার বিষয়ে তিনি কিছুই জানেন না, তবে খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান

উল্লেখ্য, গত ১৯ ফেব্রুয়ারী-২০১৯ইং, মহাসড়কে সড়ক দূর্ঘটনা, যাত্রী হয়রানি ও চাঁদাবাজি রোধ কল্পে ট্রাফিক পুলিশ বিভাগের মতবিনিময় সভায় লক্ষ্মীপুর পুলিশ সুপার আ, স, ম মাহতাব উদ্দিন সিএনজি শ্রমিক ইউনিয়নের সকল সিএনজি সংক্রান্ত চাঁদা না তেলার আদেশ দেন। উক্ত আদেশ কার্যকর করার লক্ষ্যে জেলা সিএনজি শ্রমিক ইউনিয়ন ১৯ফ্রেব্রুয়ারি-২০১৯ইং তোরাবগঞ্জ সিএনজি শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি/সেক্রেটারি বরাবর চিঠি প্রেরণ করেন।