কুমিল্লায় আদালত চত্বরে সাংবাদিক মামুন উপর অতর্কিত হামলা

0
191

নিজেস্ব প্রতিনিধি : আজ মঙ্গলবার সকাল আনোমানিক ১০টা ৩০মিঃ সময় একটি মিথ্যা ও বানোয়াট মামলায় হাজিরা দিতে কুমিল্লা জজকোটে যায় মানবাধিকার কর্মী ও সাংবাদিক আব্দুল্লাহ আল মামুন ভূঁঞা(বাবু)।এসময় সন্ত্রাসীরা সাংবাদিক মামুন কে আদালত চত্বরে গেড়াও করেফেলে,এবং গুন্ডারা তার সাথে অসুভনীয় আচার আচরন শুরুকরে।

একপর্যায় সন্ত্রাসীরা গাড়িতে উঠতেবলে।এতে মামুন নাবলায় সন্ত্রাসীরা বলে মামলার জন্যইতো এসেছ তুমার বাদী ও তার লোকজন তুমারজন্য বসেআছে,চল মিলঝিল ওখানে হবে। কিন্তু মামুন তাদেরকে বলে আদালতে যে কাজেএসেছি তা শেষকরে বেরহব,আপনারা একটু অপেক্ষা করুন।

সন্ত্রাসীরা আদালতের দক্ষিণ গেইট দিয়ে জোরকরে হুন্ডায় উঠিয়ে বেরহয়ে আদালতের পর্শ্চিম গেইট অতিক্রম করার সময় জেমে আটকপড়ায় মামুন তার কৌশল আবলম্বন করে তাদের হাতথেকে ছুটেই দৌড়ে আদালতে আবার প্রবেশ করেন। এসময় সন্ত্রাসীরা মামুনের পিছু দাওয়া করে একপর্জায় আদালত চত্বরে আবার ও সার্টের কলারে ধরেফেলে। তখন মামুন বলে ভাই কেন আপনারা আমায় অপহরন করতে চাইছেন? আপনারা কারা বা কে পাঠিয়েছে? আমি এতিম আমায় হত্যা বা জখম কইরেন না। জবাবে গুন্ডা বাহিনীরা বলতেছে ফোনে তোকে আমাদের লোক মেরেফেলব তা সুধু মুখেই বলেছে তখন জিডিকরেছিলি তাই মারিনি,আমাদের লোকের বিরুদ্ধে মামলা করেছস,তোর বৌ যেতেচায়না তারপরও কেন নিতেচাস,আমাদের লোকের বিরুদ্ধে নিউজ করস,তোর আজ রক্ষানেই বলেই শারীরিক নির্যাতন শুরুকরে ও গালমন্দ করে বলে মেরেফেলব,আরকখনও এখানে আসবিনা বলে আর অতর্কিত হামলা চালায়।

সাংবাদিক মামুন জানায়,গাজী রাসেল ও রায়হানসহ অজ্ঞাতনামা ৭/৮জন তার উপর হামলা করেন। এমতাবস্থায় আদালতে আসা কিছু লোক সহ সাংবাদিক মামুনের আইনজীবি এড. জলফু মিয়া ও এড. মামুনসহ আইনজীবিদের একটি টিম তাকে উদ্ধার করে বিচারকের এজলাসে নিয়ে যায়।তিনি বিচারকের এজলাসে প্রাইঘন্টা খানেক নিরাপদ স্থান হিসেবে বসেছিলেন।এর মধ্যেই গুন্ডারা আতংক সৃষ্টি করে জমাকৃত লোকজনকে ভয়লাগিয়ে পালিয়ে যায়।

উল্লেখ যে,সাংবাদিক আব্দুল্লাহ আল মামুন ভূঁঞা(বাবু) সাকসেস হিউম্যান রাইটস সোসাইটি এর কুমিল্লা জেলা শাখার প্রধান সমন্বয়কারী, জাতীয় সাপ্তাহিক ইউনিভার্সাল সংবাদ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক। এছাড়াও তিনি সাংবাদিক হিসেবে কুমিল্লা জেলা প্রতিনিধির দায়িত্ব পালন করছেন সংবাদ টিভি, আলোকিত ঢাকা,বাংলার আওয়াজ টিভি, পিপলসনিউজ, দৈনিক আলোকিত দেশ পত্রিকা সহ কুমিল্লা আঞ্চলিক বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় সাফল্যতার সাথে সাংবাদিকতা করেন। সাংবাদিক ও মানবাধিকার কর্মী সংগঠন হিসেবে তার রয়েছে বিশেষ অবদান।

এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করেন আলোকিত ঢাকার সম্পাদক সুপ্রিম কোটের আইনজীবি এড. এম আমিনুল ইসলাম মুনির।