কুয়েতে সাবেক মন্ত্রী নৌবাহিনী প্র্ধান মাহবুব আলী খানের ৩৪তম মৃত্যু বার্ষিকী পালিত

0
136

মোঃবিলাল উদ্দিন, স্টাফ রিপোর্টার : গত ১০আগষ্ট ২০১৮রাতে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ফোরাম সিলেট বিভাগ কুয়েত’র উদ্যোগে রিয়াল এডমিরাল (অব:) মাহবুব আলী খানের ৩৪ তম মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল করা হয়েছে কুয়েত সিটিস্হ রাজধানী হোটেল বলরুমে জাতীয়তাবাদী সিলেট বিভাগ কুয়েতের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সাবেক ছাত্রনেতা ফারুক আহমেদের সভাপতিত্বে ও যুগ্ম সম্পাদক মিজানুর রহমান রুমনের পরিচালনায় মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন, বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাঈন উদ্দিন .বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও জালালাবাদ সমাজ কল্যান সমিতি কুয়েত’র সভাপতি হাজী জোবায়ের আহমেদ. কুয়েত রাজ্য বিএনপি’র সহ সভাপতি সোয়েব আহমেদ.জাতীয়তাবাদী ফোরাম সিলেট বিভাগের উপদেষ্টা আবুল হাসেম এনাম,উপদেষ্টা আবুল কালাম আজাদ. উপদেষ্টা শেখ নিজামুর রহমান টিপু। জাসাস কুয়েত রাজ্য শাখার সদস্য সচিব শফিক আহমেদ ও জাতীয়তাবাদী ফোরাম এর সাধারন সম্পাদক শিহাব বখ্ত।

মরহুম মাহবুব আলী খানের উপর আলোচনা করেন – যুগ্ম সম্পাদক ফরহাদ আহমেদ, যুগ্ম সম্পাদক সুমন আনসারী .সহ সভাপতি লিটন আহমেদ,সহ সভাপতি শহিদ খাঁন, মহানগর বিএনপি’র সাধারন সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম।অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন,তরুণ সংগঠক শেখ শামীম আহমদ,যুবনেতা ফয়ছল আহমদ ফজল সহ বিভিন্ন সংগঠন শীর্ষ নেতৃবৃন্দ।

মিলাদ ও দোয়া মাহফিলে সাব্বির আহমেদ এর কোরআন তেলাওয়াত দিয়ে শুরু হয় এবং মৌলানা ফেরদাউস আহমেদ এর দোয়া ও মোনাজাতের মধ্যে দিয়ে দোয়া -মাহফিলে শেষ হয় ।

বক্তারা বলেন বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের আগেই মাহবুব আলী খান পশ্চিম পাকিস্তানে চাকরিরত ছিলেন। তার স্ত্রী ও দু’কন্যাসহ মাহবুব আলী খান পশ্চিম পাকিস্তানে অবস্থান করছিলেন। তখন যুদ্ধের সময় মাহবুব আলী খানের দেশপ্রেম উপলব্ধি করে পাকিস্তান বাহিনী পরিবারসহ তাকে গৃহবন্দি করে।

দীর্ঘ ২ বছর বন্দিজীবন শেষে ১৯৭৩ সালে স্ত্রী ও দু’কন্যা বিন্দু ও বিনুসহ আফগানিস্তান ও ভারত হয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসতে সক্ষম হন।

রিয়াল অ্যাডমিরাল মাহবুব আলী খাঁন ছিলেন নৌবাহিনী প্রধান এবং পরে যোগাযোগ ও কৃষী মন্ত্রী ছিলেন । উনারা বাবা ও দাদা ছিলেন খাঁন বাহাদুর । দেশের সেবাই ছিলো উনার ব্রত ।